১৯শে মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, রবিবার,রাত ৯:০৯

জীবাশ্ম জ্বালানিতে বিনিয়োগ প্রত্যাহারের দাবিতে নৌ সমাবেশ

প্রকাশিত: সেপ্টেম্বর ৭, ২০২৩

  • শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক. বাগেরহাটে জীবাশ্ম জ্বালানিতে বিনিয়োগ প্রত্যাহারের দাবিতে নৌ সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার (৭ সেপ্টেম্বর) দুপুরে পশুর নদীতে বাংলাদেশের প্রতিবেশ ও উন্নয়ন বিষয়ক কর্মজোট (বিডাব্লিউজিইডি),মোংলা নাগরিক সমাজ ও ক্লিন খুলনার যৌথ আয়োজনে এই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। “কয়লা গ্যাস, হাইড্রোজেন নয়ঃ নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে অর্থায়ন চাই” এই স্লোগানকে সামনে রেখে বিভিন্ন শ্রেনি পেশার প্রতিনিধিরা এই সমাবেশে অংশগ্রহন করেন।

সমাবেশে বক্তব্য দেন, মোংলা নাগরিক সমাজের আহ্বায়ক ও বাংলাদেশ পরিবেশ আন্দোলন (বাপা)‘র কেন্দ্রিয় যুগ্ম সম্পাদক মোঃ নূর আলম শেখ, নারীনেত্রী কমলা সরকার, পরিবেশকর্মী রাকেশ সানা,  আব্দুর রশিদ হাওলাদার, মার্টিন সরকার, ফাতেমা জান্নাত, জলবায়ু যোদ্ধা সুষ্মিতা মন্ডল, তন্বী মন্ডল, মেহেদী হাসান বাবু প্রমূখ।

বক্তারা বলেন, দেশে মোট বিদ্যুৎ উৎপাদন সক্ষমতার ৮২ শতাংশই গ্যাস, কয়লা ও ডিজেল ভিত্তিক এবং এর অধিকাংশই আমদানি নির্ভর। এই গ্যাস যাদের কাছ থেকে আমদানি করতে হয় তার অধিকাংশই জি-২০ ভূক্ত দেশ। এই গ্যাস, কয়লা ও তেল ভিত্তিক জ্বালানিতে দেশের বিপুল পরিমান ডলার ব্যয় হয়। যা আমাদের মত দেশকে আরও দরিদ্রের দিকে ঠেলে দিচ্ছে। দেশের আর্থিক দূরাবস্থাকে উন্নতি করতে নবায়নযোগ্য জ্বালানিতে বিনিয়োগ করার আহবান জানান বক্তারা।

বক্তারা আরও বলেন,  গত ১৫ বছরে ১৩ বার বিদ্যুতের দাম বাড়ানো হয়েছে। এর মধ্যে এ বছরের প্রথম তিন মাসে বাড়ানো হয় তিনবার। অন্যদিকে বসে বসে কেন্দ্র ভাড়া পাচ্ছে বিদ্যুৎ কেন্দ্র গুলো। গত সাড়ে ১৪ বছরে বেসরকারি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের ভাড়ার পেছনে ব্যয় হয়েছে ১ লাখ ৪ হাজার ৯২৭ কোটি টাকা। ক্যাপাসিটি চার্জের নামে বিদ্যুৎ খাতের এই হরিলুট বন্ধ করতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ গ্রহনের আহবান জানান বক্তারা।

  • শেয়ার করুন