২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার,সকাল ৬:২১

বাগেরহাটে আওয়ামীলীগ  নেতা হত্যা : গ্রেফতার ২   

প্রকাশিত: জুন ১৯, ২০২৩

  • শেয়ার করুন
বাগেরহাট প্রতিনিধি.  বাগেরহাটে  চিংড়ি ঘের বিরোধের জেরে প্রতিপক্ষের হামলায় আওয়ামীলীগ নেতা আনারুল শেখ নিহত  হওয়ার ঘটনায় এহাজার ভুক্ত দুই আসামীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রোববার রাতে পুলিশ অভিযান চালিয়ে আসামী কালাম বয়াতি ও আবু বক্কর সিদ্দিক ওরফে নিবাসকে গ্রেফতার করা হয়। এরআগে নিহত আওয়ামীলীগ নেতা আনারুল শেখের স্ত্রী মাফুজা বেগম বাদি হয়ে হত্যাকান্ডে জড়িত পৌর যুবলীগ সদস্য সোহেল হাওলাদার ওরফে কালা সোহেলকে প্রধান করে ১৩ জনের নাম উল্লেখ সহ আরও ৫-৬ জনকে আসামী করে বাগেরহাট মডেল থানায় মামলা দায়ের করে।
এদিকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ময়না তদন্ত শেষে রোববার সন্ধ্যায় নিহতের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করেছে পুলিশ। এসময় স্বজনদেও আহাজারিতে আকাশ ভারি হয়ে উঠে।স্বজনরা খুনীদের শাস্তি দাবী করেছে। রাতে তার দাফন সম্পন্ন হয়েছে।
 শনিবার (১৭ জুন) দুপুরে বাগেরহাট সদর উপজেলার মেরিন ইনস্টিটিউটের সামনে নাগের বাজার এলাকার সোহেল হাওলাদার ও রাখা হাওলাদারসহ ৭-৮জন সন্ত্রাসী আওয়ামীলীগ নেতা আনারুল শেখ ওরফে আনার উপর হামলা করে। আনাকে পিটিয়ে ও কুপিয়ে অচেতন অবস্থায় ফেলে রেখে যায়। পরে বিকেল পৌনে ৩টার দিকে খুলনা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় আনারুল।
নিহততের ছোট ভাই বাচ্চু শেখ বলেন, সোহেলের খালু কালাম বয়াতির সাথে ঘের নিয়ে বিরোধ ছিল আমার । মেঝ ভাইয়ের  (আনারুল) সাথে তাদের কোন বিরোধ ছিল না। তারপরও তারা ভাইকে  প্রকাশ্যে মেরে ফেলল। নিহত আওয়ামী লীগ নেতা শেখ আনা বাগেরহাট পৌর শহরের বাসাবাটি এলাকার আব্দুল গনি শেখের ছেলে। তিনি বাগেরহাট পৌরসভার ৮নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের দপ্তর সম্পাদক ছিলেন।
স্থানীয়দের সাথে কথা বলে জানাযায়, সদর উপজেলার বেমরতা ইউনিয়নের বৈটপুর এলাকার চিংড়ি গবেষণা কেন্দ্রের পেছনের একটি সরকারি খাল দখলে নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে ঘের করতেন প্রভাবশালীরা। এই ঘের দখল নিয়ে বাচ্চু শেখ ও কালাম বয়াতীর মধ্যে বিরোধ চলছিল। এই বিরোধের জেরেই হত্যাকান্ড ঘটে। দুই পক্ষই সরকার দলীয় রাজনীতির সাথে জড়িত। অভিযুক্ত সোহেল হাওলাদার বাগেরহাট সদর উপজেলার নাগেরবাজার এলাকার রশীদ হাওলাদারের ছেলে।
বাগেরহাট সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কে এম আজিজুল ইসলাম বলেন, আওয়ামী লীগ নেতা আনারুল ইসলাম ওরফে আনা হত্যাকান্ডে জড়িত এজাহারভুক্ত দুই আসামীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। অন্য খুনীদের গ্রেফতারের জন্য  জোর চেষ্টা করা হচ্ছে।
  • শেয়ার করুন