২২শে ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ, বৃহস্পতিবার,সকাল ৬:৫৩

বেশিরভাগ সড়কে হাটু পানি, জলাবদ্ধতায় সাড়ে ৭ হাজার পরিবার, চিংড়ি প্লাবিত

প্রকাশিত: আগস্ট ৭, ২০২৩

  • শেয়ার করুন

নিজস্ব প্রতিবেদক. টানা বৃষ্টিতে বাগেরহাটের জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। সোমবার ভোর থেকে মুসলধারে বৃষ্টির পানিতে শহর ও গ্রামের নিম্মাঞ্চল জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে।  গেল ২৪ ঘন্টায় ১৬৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করেছে আবহওয়া অফিস। যা রবিবারের থেকে ৮৯ মিলিমিটার বেশি। অবিরাম বৃষ্টিতে চরম বিপাকে পড়েছেন খেটে খাটা খাওয়া নিম্ন আয়ের মানুষ। জলাবদ্ধতার শিকার হয়েছেন ৭ হাজার ৫১০টি পরিবার। ১ হাজার ৫৮০টি মাছের ঘের প্লাবিত হয়েছে বলে জানিয়েছেন জেলা প্রশাসন।

দুপুরে সরেজমিনে বাগেরহাট পৌর এলাকায় দেখা যায়, শহরের মিঠাপুকুরপাড়, খানজাহান আলী সড়ক, শালতলার মোড়, সাধণার মোড়, রাহাতের মোড়, মাছবাজার, কাঁচাবাজার, চালপট্টী, পুরাতন বাজার মোড়, বাসাবাটি, সাহাপাড়া, খানজাহান পল্লী-গোবরদিয়া, খারদ্বার, ভূমি অফিস মোড়সহ বাগেরহাট পৌরসভার নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। বেশকছিু সড়কে হাটু পর্যন্ত পানি ছিলো।

মিঠাপুকুর পাড় এলাকা দিয়ে যাওয়া রিকশা চালক আলমগীর হোসেন বলেন, গেল সাতদিন ধরে বৃষ্টিতে খুবই অসহায় হয়ে পড়েছি। সকাল থেকে মুশুল ধারায় বৃষ্টি হওয়ার পরেও, রিকশা নিয়ে বেড়িয়েছি। লোকজন নেই, তারপরও দুই চারজন যা পাচ্ছি এই দিয়েই আজকের বাজার হবে।

শঙ্কর ঢালী বলেন, বৃষ্টির জন্য আমাদের মত বিক্রয়কর্মীদের খুবই সমস্যা হচ্ছে। বৃষ্টিতে রাস্তাঘাট চলাচলের অনুপযোগী হয়ে পড়ে। সাধারণ মানুষ বাইরে আসতে পারে না। যার ফলে আমাদের বিক্রয় কম হয়। প্রাইভেট চাকুরী, প্রতিদিন জবাবদিহিতা করতে হয় আমাদের।

বৃষ্টির পানিতে রাস্তাঘাট তলিয়ে যাওয়া ও জলাবদ্ধতার কারণ হিসেবে বাগেরহাট প্রেসক্লাবের যুগ্ন সাধারণ সম্পাদক আজমল হোসেন বলেন, ড্রেনগুলো বন্ধ থাকার কারণে সহজেই জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। ড্রেনগুলোতে অবৈধভাবে দোকান পাট দিয়ে বসেছে। সরকারের উচিত ড্রেনগুলোকে দখলমুক্ত করা। পৌরসভার পক্ষ থেকে ড্রেনগুলো পরিস্কার করলে, জলাবদ্ধতা কম হবে বলে মনে করেন তিনি।

শুধু বাগেরহাট পৌরসভা নয়, টানা বৃষ্টিতে মোংলা ও মোরেলগঞ্জ পৌরসভার বিভিন্ন সড়ক, বাজার এবং নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। ভোগান্তি পড়েছেন ওই এলাকার মানুষ। মোংলা পৌরসভার মুসলিমপাড়া জামে মসজিদের ইমাম মাহমুদ হোসেন বলেন, বৃষ্টিতে রাস্তায় হাটু পানি জমে গেছে। ড্রেনগুলো থেকে পানি সরে না। আমরা কয়েকজন লাঠি নিয়ে ড্রেনগুলো পরিস্কার করে পানি সরানোর চেষ্টা করছি।

মোরেলগঞ্জ পৌর এলাকার আমজেদ হোসেন বলেন, বৃষ্টির পানি সহজে নামতে না পাড়ায়, মোরেলগঞ্জ বাজার, বারুইখালী, উপজেলা পরিষদ চত্বর, কুঠিবাড়ি, এসিলাহা স্কুল, এসএম কলেজ, সরকারি বালিকা বিদ্যালয়, সেতারা আব্বাস টেকনিক্যাল কলেজ, রওশোনআরা ডিগ্রি কলেজ, আজিজিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়সহ পৌরসবার বেশিরভাগ এলাকা পানিতে নিমজ্জিত রয়েছে। অনেকের পুকুরের মাছ বের হয়ে গেছে। পানিবন্ধি রয়েছে অনেক পরিবার। পৌর এলাকায় ড্রেনেজ ব্যবস্থা ভাল থাকল বৃষ্টির পানি এত বেশি জমতে পারত না বলে জানান তিনি।

এদিকে বৃষ্টি ও জোয়ারের পানিতে রামপাল, মোংলা, মোরেলগঞ্জ ও কচুয়ার বেশকিছু এলাকায় মৎস্যঘের ডুবে মাছ বের হয়ে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে। মৎস্য চাষীরা নেট ও পাটা দিয়ে মাছ রক্ষার চেষ্টা করছেন। বৃষ্টি দু-একদিন স্থায়ী হলে এসব এলাকার বেশিরভাগ ঘের ডুবে যাবে বলে দাবি মাছ চাষীদের।

রামপাল উপজেলার হুড়কা গ্রামের সুজন মজুমদার বলেন, ঘেরের তিন পাশে নেট দেওয়া ছিল। একপাশে নেট দিতে পারিনি। পানিতে ডুবে যাওয়ায় ওইপাশ দিয়েই মাছ বেরিয়ে গেছে। শুধু আমার ঘের নয়, এলাকার অনেকের ঘের ডুবে মাছ বেরিয়ে গেছে। রাস্তাঘাটও পানির নিচে রয়েছে।

তবে এই বৃষ্টিতে কৃষি মাঠে থাকা সবজি ও ফসলের কোন ক্ষতি হয়নি। বরং আমন ধানে বীজতলা ও সবজি ক্ষেতের উপরকার হয়েছে বলে জানিয়েছেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপ-পরিচালক মোঃ রফিকুল ইসলাম। তিনি বলেন, বৃষ্টি যদি অব্যাহত থাকে তাহলে, ঘেরের পারে থাকা সবজির ক্ষতি হওয়ার শঙ্কা রয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড, বাগেরহাটের নির্বাহী প্রকৌশলী মোঃ মাসুম বিল্লাহ বলেন, পূর্নিমার জোয়ারের প্রভাব কেটে যাওয়ায় নদ-নদীর পানি কিছুটা কমেছে। কোন নদীর পানি বিপদসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে না। তবে বৃষ্টির পানি মানুষকে খুব ভোগাচ্ছে।

বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মোহাঃ খালিদ হোসেন বলেন, প্রাথমিক তথ্য অনুযায়ী ভারি বৃষ্টিতে জেলার ৭ হাজার ৫১০টি পরিবার জলবদ্ধতার শিকার হয়েছেন। ১ হাজার ৫৮০টি মাছের ঘের প্লাবিত হয়েছে। ক্ষতিগ্রস্ত পরিবার ও অসহায় মানুষদের খোজ খবর নিতে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাদের নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

 

  • শেয়ার করুন